1. admin@tbcnews24.com : admin :
রবিবার, ০৭ অগাস্ট ২০২২, ১০:৪৮ অপরাহ্ন

কুমিল্লা’র কামাররা ব্যস্ত সময় পার করলেও তেমন লাভবান হয়নি

আব্দুল্লাহ আল মানছুর
  • আপডেট সময় : শনিবার, ৯ জুলাই, ২০২২
  • ৪৫ বার পঠিত

রাত পোহালেই ঈদুল আযহা। ঈদুল আযহা মানেই কোরবানির পশু কেনার প্রয়াসে জনসাধারনের হাট বাজারে ছোটা-ছুটি। এমনকি পশু জবাইয়ের উপকরণ তৈরিতে কামারশালা গুলোতে ছোটে সাধারণ মানুষ, ব্যস্ত থাকে কামার পাড়ার কামাররা। কোরবানি ঈদকে সামনে রেখে টুং টাং শব্দে ব্যস্ত সময় পার করছেন কুমিল্লা নগরীর চকবাজার এলাকার কামার শিল্পীরা। চলছে হাঁপর টানা, পুড়ছে কয়লা, জ্বলছে লোহা। হাতুড়ি পিটিয়ে কামার তৈরি করছেন চাপাতি, ছুরি, চাকু, দা, বঁটিসহ মাংস কাটার বিভিন্ন সরঞ্জাম। মুসলিমদের পবিত্র দু’টি ধর্মীয় উৎসব ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহা। আর ঈদুল আযহা এলেই চঞ্চল হয়ে ওঠেন চকবাজারের কামারশালার কামাররা। তাই ঈদ যতই ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে কামারদের ব্যস্ততা। বাড়তি কিছু রোজগারের জন্য বছরে এ সময়ের প্রতীক্ষায় থাকেন কামার শিল্পীরা। অন্যদিকে বাড়তি চাপ সামাল দিতে নতুন কর্মচারী নিয়েছেন। শেষ সময়ে ব্যাপক ব্যাস্ত সময় পার করছে কামাররা, কথা বলার সময়ই পাচ্ছে না তারা। দোকানগুলোতে এখন দম ফেলার ফুরসৎ নেই। কুমিল্লা নগরীর চকবাজার,রাজগঞ্জ,রানীরবাজার,বৌবাজারসহ বিভিন্ন স্থানে কামারদের ব্যস্ততা চোঁখে পরছে।। প্রতিটি দোকানেই চার পাঁচজন করে কাজ করছেন। সদর উপজেলার কামাররা জানান, কয়লার দাম বেশি হওয়ায় অন্য বারের চেয়ে এবার ছুরি, দা, বটির দাম কিছুটা বেশি। আধুনিক প্রযুক্তির ছোঁয়ায় কামার শিল্প বিলুপ্তপ্রায়। সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে পারছেন না এ শিল্পের সঙ্গে জড়িতরা। উল্টো প্রযুক্তির দাপটে ক্রমেই মার খাচ্ছে এ কামার শিল্প। বছরের ১১ মাস কামারশালায় তেমন একটা কাজ থাকে না বললেই চলে। কামারশিল্পী সুশীল চন্দ্র দেব বলেন, বর্তমান সময়ে কয়লা, লোহাসহ সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় আগের মতো লোহার জিনিসপত্র তৈরি করলেও তেমন কোন লাভ হয় না। অনেক সময় কয়লা একেবারেই পাওয়া যায় না। কি আর করব পূর্ব পুরুষের ব্যবসা টিকিয়ে রাখতেই হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

ফেসবুকে আমরা